Breaking News
Home / অন্য রাজ্যের খবর / হিমালয় বাঁচাও কমিটি উত্তরাখণ্ডে

হিমালয় বাঁচাও কমিটি উত্তরাখণ্ডে


হিমালয় অঞ্চলে প্রবল বন্যা, ধস ইত্যাদি বিপর্যয়ে মানুষ, বন্যপ্রাণী সহপ্রকৃতির বিরাট ক্ষতি হয়েই চলেছে। মাসখানেক আগে উত্তরাখণ্ডের চামোলিতে এ রকম বিপর্যয়ে বহু মানুষ মারা গেছেন, নিখোঁজ হয়েছেন শতাধিক। বিশেষজ্ঞরা বরাবরই বলছেন, পাহাড়ি অঞ্চলে জলবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র সহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের জন্য প্রকৃতির ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। তবু সরকারের টনক নড়েনি। এই পরিস্থিতিতে উত্তরাখণ্ডের বিশিষ্ট জনেরা মনুষ্য-সৃষ্ট এই বিপর্যয়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন। ১৫ মার্চ দেরাদুনে এক নাগরিক সভায় বিশিষ্ট ভূতত্ত্ববিদ ডঃ এস পি সতি হিমালয়ের ভূ-প্রকৃতি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন (ছবি)। জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি এখানে গড়ে ওঠার বিপদ সম্পর্কে বিজ্ঞানীদের উদ্বেগের কথা তিনি তুলে ধরেন। উত্তরাখণ্ড হাইকোর্টের প্রবীণ আইনজীবী ডি পি নওটিয়াল দেখান, কী ভাবে আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে এই প্রোজেক্টগুলি হচ্ছে। প্রবীণ সাংবাদিক শঙ্কর সিং ভাটিয়া এবং যোগেশ ভাট দেখান ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের ক্ষতিপূরণে সরকার কী ভাবে দলবাজি করেছে।
সভা থেকে ‘হিমালয় বাঁচাও কমিটি’ গঠিত হয়। কনভেনর হয়েছেন ডঃ মুকেশ সেমওয়াল। কমিটির পৃষ্ঠপোষক হিসাবে রয়েছেন বিশিষ্ট গায়ক ও কবি নরেন্দ্রর সিং নেগি এবং সমাজকর্মী ও সাংবাদিক রাজীব লোচন। উপদেষ্টামণ্ডলীতে রয়েছেন সাংবাদিক যোগেশ ভাট, চারু তিওয়ারি, শঙ্কর সিং ভাটিয়া, বিজ্ঞান বিষয়ক উপদেষ্টামণ্ডলীতে রয়েছেন ডঃ এস পি সতি এবং ডঃ নবীন জুয়েল। ১৪ সদস্যের এই কমিটি উত্তরাখণ্ডের জন্য উপযুক্ত হিমালয়-নীতি প্রণয়নের উদ্দেশ্যে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।