Breaking News
Home / খবর / সিপিআই(এম–এল) লিবারেশনের পার্টি কংগ্রেসে এস ইউ সি আই (কমিউনিস্ট)

সিপিআই(এম–এল) লিবারেশনের পার্টি কংগ্রেসে এস ইউ সি আই (কমিউনিস্ট)

২৪ মার্চ পাঞ্জাবের মানসায় সিপিআই (এম–এল) লিবারেশন–এর দশম পার্টি কংগ্রেসের প্রকাশ্য অধিবেশনে আমন্ত্রিত এসইউসিআই (সি)–র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড সত্যবান নিম্নের ভাষণটি রাখেন৷

সিপিআই (এম–এল) লিবারেশনের দশম পার্টি কংগ্রেসের প্রকাশ্য অধিবেশনে আজ আমি এসইউসিআই (কমিউনিস্ট)–এর কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে আপনাদের বিপ্লবী অভিনন্দন জানাচ্ছি৷ আপনাদের এই পার্টি কংগ্রেস এমন একটা সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন এই দেশের এবং গোটা বিশ্বের পরিস্থিতি অত্যন্ত সঙ্কটে৷ সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলি গোটা বিশ্ব জুড়ে একের পর এক ধ্বংসলীলা চালাচ্ছে৷ আমেরিকা সহ এইসব সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলির সঙ্গে ভারতীয় পুঁজিপতিরা অত্যন্ত খোলাখুলি বিপজ্জনকভাবে হাত মিলিয়ে চলছে৷

আপনারা  জানেন, ভারতীয় পুঁজিপতিরা সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলির সঙ্গে একযোগে বিশ্বায়নের নীতি চালু করে বিদ্যমান অর্থনৈতিক সঙ্কট সমাধানের যে কথা ঘোষণা করেছিল, তা ব্যর্থ হয়েছে৷ চীন ও রাশিয়ার নবগঠিত সাম্রাজ্যবাদী জোটের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে আমেরিকা জাপান, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়ার সাম্রাজ্যবাদী জোটের সঙ্গে ভারত সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করছে৷ দেশের ভিতরেও মেহনতি জনতার শেষ রক্তবিন্দুটুকুও শোষণ করে তাদের প্রাণের বিনিময়ে ভারত রাষ্ট্র নিজের পুঁজিবাদী অর্থনীতিকে অতি দ্রুত আরও শক্তিশালী করে তুলছে৷ শুধু যে খেটে–খাওয়া মানুষকে ব্যাপক শোষণ ও নিপীড়ন করা হচ্ছে তাই নয়, তাদের মধ্যেকার ঐক্য ধ্বংস করতে সমাজের নানা সামাজিক ও ধর্মীয় অংশগুলিকে একে অপরের বিরুদ্ধে উস্কানি দিয়ে শত্রুতা এবং ভ্রাতৃঘাতী দাঙ্গা–হাঙ্গামা ও সংঘর্ষ সৃষ্টি করা হচ্ছে৷ এ হল এক ফ্যাসিবাদী কৌশল এবং আমাদের অবশ্যই এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে৷

বর্তমানে গোটা বিশ্ব জুড়ে পুঁজিবাদী ব্যবস্থা আরও বেশি বেশি করে ফ্যাসিবাদের আশ্রয় নিচ্ছে৷ শুধু নগ্ন সামরিক একনায়কতন্ত্র বা স্বৈরাচারী শাসনের রূপে নয়, সংসদীয় কাঠামোর মধ্যে একদলীয় বা দ্বিদলীয় শাসনের আড়ালেও ফ্যাসিবাদ আজ প্রতিটি পুঁজিবাদী দেশের বৈশিষ্ট্য৷ আপনারা লক্ষ করছেন যে ভারতে মুষ্টিমেয় বহুজাতিক ও একচেটিয়া ব্যবসায়ীদের হাতে গোটা অর্থনীতি কুক্ষিগত৷ কেন্দ্রীভূত প্রশাসন সর্বত্রই উচ্চতম আমলাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে৷ বিচারবিভাগকেও নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে৷ সংস্কৃতির ক্ষেত্রেই আক্রমণ সবচেয়ে মারাত্মক৷ বিজ্ঞান ও ইতিহাস বিকৃত করে অন্ধ ভক্তি ও উগ্র জাতিবিদ্বেষের সংস্কৃতি গড়ে তোলার চেষ্টা হচ্ছে৷

প্রায় প্রতিটি দেশেরই একই চিত্র৷ বহু দিন আগেই মহান লেনিন ও স্ট্যালিন এ বিষয়ে আমাদের সতর্ক করেছেন৷ তাঁদের শিক্ষা রয়েছে আমাদের কাছে৷ আমরা নিজেরা দীর্ঘদিন ধরেই বুঝতে পারছি যে পুঁজিবাদ আজ আর গণতন্ত্র বা ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাস করে না৷ আমলাতন্ত্র ও সামরিকতন্ত্রের উপর তার প্রধানত নির্ভরশীলতা৷ পুঁজিবাদী রাষ্ট্র ক্রমেই বহুজাতিক ও একচেটিয়া পুঁজির আরও বেশি দাসানুদাস হয়ে পড়ছে৷ কংগ্রেসের আমল থেকেই এর শুরু৷ প্রথম থেকে তারা এ বিষয়ে জোর দিয়েছিল৷ এখন বিজেপি নগ্নভাবে সেই একই পথ ধরেছে৷ এর প্রতিরোধ করতে হবে আমাদের৷ নির্বাচনী জোট করে বা নির্বাচনী লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে একে প্রতিরোধ করা যাবে না৷ ধারাবাহিক বামপন্থী গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও বিপ্লবী আন্দোলনের মাধ্যমেই একে প্রতিরোধ করা সম্ভব৷

দেশে নানা স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভ আন্দোলন সংঘটিত হয়ে চলেছে৷ কিন্তু আজ প্রয়োজন সঠিক নেতৃত্বে সুসমন্বিত, সুসংগঠিত আন্দোলন৷ বামপন্থীরা ছাড়া অন্য কোনও শক্তি এটা গড়ে তুলতে পারে না৷ এটাই আজ সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন৷ বামপন্থী আন্দোলনের এই ঢেউ গোটা দেশে মানুষের ঐক্য রক্ষা করবে৷ শ্রমিক, কৃষক, শোষিত–নিপীড়িত মানুষের অধিকার যা বর্তমানেনির্মম আক্রমণের মুখে পড়ছে, বামপন্থী আন্দোলনের তরঙ্গই তাকে রক্ষা করতে পারে৷ মুক্তির স্বপ্ণ, ভগৎ সিং সহ স্বাধীনতা আন্দোলনের বীর শহিদদের স্বপ্ণ বুকে নিয়ে যে দিনটির জন্য আমরা রক্তপতাকা হাতে অপেক্ষা করছি, সেই দিন নিশ্চয়ই আসবে৷ দেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও আমাদের কত সাথী প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন৷ তাঁদের আত্মবলিদানের মর্যাদা রক্ষা করতে এ ছাড়া অন্য পথ নেই৷ ফলে বাম ঐক্যের লক্ষ্যে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে এবং আমাদের বিশ্বাস সিপিআই (এম–এল)–লিবারেশনের এই দশম পার্টি কংগ্রেস সেই লক্ষ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে৷

(৭০ বর্ষ ৩৫ সংখ্যা ২০ এপ্রিল, ২০১৮)