Breaking News
Home / খবর / মুখ্যমন্ত্রীকে পরিযায়ী শ্রমিক প্রসঙ্গে আমাদের পরামর্শ ও দাবি — চণ্ডীদাস ভট্টাচার্য

মুখ্যমন্ত্রীকে পরিযায়ী শ্রমিক প্রসঙ্গে আমাদের পরামর্শ ও দাবি — চণ্ডীদাস ভট্টাচার্য

২১ এপ্রিল করোনা প্রতিরোধের বর্তমান স্তরে দলের পক্ষ থেকে

পরিযায়ী শ্রমিক প্রসঙ্গে আমাদের পরামর্শ ও দাবি মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি

মহাশয়া,

নিম্নলিখিত বিষয়ে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ও দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করছি –

(১) পরিযায়ী শ্রমিক – বিভিন্ন রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকরা যাঁরা গিয়ে লকডাউনের জন্য আটকে আছেন তাঁরা ভীষণ সমস্যার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন তা আপনারা নিশ্চয় জানেন। রাজ্য ধরে ধরে একটি তালিকা আমরা আপনার অবগতির জন্য পাঠালাম। তাঁদের জন্য আমাদের দাবি, (ক) কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে তাঁদের এরাজ্যে ফেরত আনা ও নিয়মমাফিক পরীক্ষা বা কোয়ারেন্টাইনে রাখার পর বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা, (খ) সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারের সঙ্গে কথার ভিত্তিতে তাঁদের খাদ্য ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করা, (গ) ‘স্নেহের পরশ’ নামে এককালীন ১০০০ টাকা সাহায্যের যে স্কীম রাজ্য সরকার ঘোষণা করেছে — যদিও তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই সামান্য — সেইটুকু অন্তত যাতে তাঁরা ঠিকভাবে পান তার ব্যবস্থা করা। (ঘ) পশ্চিমবাংলায় তাদের পরিবারকে চিহ্নিত করে তাদের সাহায্য করা।

(২) গরীব মানুষের জন্য সরকারি সাহায্য – আমরা গত ১৪ এপ্রিলের চিঠিতে জানিয়েছিলাম, অটো, মোটর ভ্যান, টোটো ও রিক্সা চালক, পরিচারিকা, অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিক, হকার, ফল সহ সমস্ত ছোট ব্যবসায়ী প্রভৃতি গরীব মানুষের জন্য রেশন সমেত সরকারি সাহায্যের যতটুকু ব্যবস্থা হয়েছে তা অপ্রতুল, গুণমানে নিম্ন এবং সর্বোপরি বিলিবন্টনের ক্ষেত্রে দলবাজি দুষ্ট। বিডিও, এসডিও, ডিএম, পুলিশের এসব ক্ষেত্রে যে ভূমিকা পালন করার কথা, বারবার বলা সত্ত্বেও তা তাঁরা করছেন না। বহুক্ষেত্রে তারা সরকারি নির্দেশ এবং উপযুক্ত পরিমাণ খাদ্যশস্য না পৌঁছানোর কথা বলছেন। এই অবস্থায় মানুষের বিক্ষোভে লকডাউন পরিস্থিতির কার্যকারিতা ব্যাহত হচ্ছে। এক্ষেত্রে আরও বেশি সরকারি নজরদারি প্রয়োজন। আমাদের দাবি, মাথাপিছু মাসিক চাল ও আটা মিলিয়ে ১২ কেজি খাদ্য দেওয়া হোক এবং তার সঙ্গে কিছু আলু ও ভোজ্য তেল দেওয়ারও ব্যবস্থা হোক।

যেসব গরীব মানুষের নানা কারণে রেশন কার্ড নেই তাঁরা কোনভাবেই সরকারি ঘোষণার স্লিপও পাচ্ছেন না, এবং রেশনও পাচ্ছেন না। বারবার বলা সত্ত্বেও এর সুরাহা হচ্ছে না। আমরা তাঁদের দ্রুত রেশন দেওয়ার ব্যবস্থার দাবি করছি।

‘প্রচেষ্টা স্কীম’ যাতে সুষ্ঠভাবে কার্যকরী হয় তা দেখার দাবি করছি।

(৩) ১০০ দিনের কাজের মজুরী– বর্তমান পরিস্থিতিতে ১০০ দিনের কাজের মজুরী পাওয়া নিয়ে দলবাজি একেবারেই অভিপ্রেত নয়। অথচ তাই ঘটছে এবং জেলায় জেলায় তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ঘটছে। কারচুপি করে যাঁরা কাজ করেছেন তাঁদের মজুরী না দিয়ে যারা করেননি তাদের দিয়ে বিনিময়ে উৎকোচ নেওয়া চলছে। দঃ ২৪ পরগণা জেলায় গতকালই এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে। আমরা এমন দুর্নীতি অবিলম্বে বন্ধের দাবি করছি।

(৪) পরীক্ষার পরিকাঠামো ও স্বাস্থ্য কর্মীদের সুরক্ষা – পরীক্ষার জন্য সরকারি পরিকাঠামো বৃদ্ধি, র‍্যাপিড টেস্ট, পুল টেস্ট ইত্যাদির মাধ্যমে যত বেশি সংখ্যক পরীক্ষার ব্যবস্থা করানো যে জরুরী তা রাজ্য সরকারের জানা আছে। এই ব্যবস্থার মাধ্যমে রাজ্যে যত বেশি সংখ্যক মানুষের পরীক্ষা করে লক্ষণহীন করোনা বাহকদের কোয়ারেন্টাইনে রেখে কম্যুনিটি সংক্রমণ প্রতিরোধ করা এবং লক্ষণযুক্তদের হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করার প্রয়োজন।আমাদের দাবি, পরীক্ষার জন্য নিয়োজিত সরকারি পরিকাঠামোর সম্পূর্ণ ব্যবহার হোক এবং সরকারি উদ্যোগে আরও ল্যাব গড়ে তোলা হোক।

PPE, মাস্ক, গ্লাভসহ নানা সুরক্ষা ব্যবস্থা ডাক্তার, নার্স, আশা, পৌরস্বাস্থ্যকর্মী সহ স্বাস্থ্যকর্মীদের না দেওয়ার ফলে অনেকেই আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন, কয়েকটি হাসপাতাল এই রাজ্যে বাস্তবে বন্ধ হয়ে গেছে এবং অথবা কিছু ওয়ার্ড বন্ধ করা হয়েছে। এমন চলতে থাকলে স্বাস্থ্যব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হবে এবং মানুষের মনে অসহয়তা সৃষ্টি হবে। আমরা অবিলম্বে এই PPE সহ সমস্ত সুরক্ষা ব্যবস্থার দাবি করছি।

আমরা আশা করব পরিস্থিতির গুরুত্ব বিবেচনা করে আপনার সরকার দ্রুত বিষয়গুলি নিয়ে সচেষ্ট হবে এবং উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সর্বদলীয় বৈঠকে উপস্থিত থেকে আমরা আমাদের দলের বক্তব্য আপনাকে জানিয়েছিলাম। আমরা আরও একবার আপনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে আমাদের পরামর্শ ও দাবিগুলি উত্থাপন করতে চাইছি। আমাদের প্রত্যাশা আপনি আমাদের সঙ্গে দ্রুত সাক্ষাৎ করবেন।

 

১৪ এপ্রিল করোনা প্রতিরোধের বর্তমান স্তরে দলের পক্ষ থেকে কিছু পরামর্শ ও দাবি পেশ করে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি

চিঠিতে বলা হয়, গোষ্ঠী সংক্রমণ এড়ানোর জন্য অবিলম্বে rapid টেস্টের পরিকাঠামো গড়ে তোলা দরকার। আইসিএমআর-এর রাজ্য প্রতিনিধি জানিয়েছেন পর্যাপ্ত কিট থাকা সত্ত্বেও কম পরীক্ষা হচ্ছে। এই প্রেক্ষিতে দাবি তোলা হয়, পরীক্ষার জন্য সরকারি পরিকাঠামো সম্পূর্ণভাবে ব্যবহার করা হোক এবং গরিব মানুষকে পরীক্ষার সুযোগ দিতে সরকারি উদ্যোগে আরও ল্যাব গড়ে তোলা হোক। চিঠিতে ডাক্তার সহ সমস্ত স্তরের স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য নির্দিষ্ট মানের সুরক্ষা ব্যবস্থা উপযুক্ত সংখ্যায় সরবরাহ করার দাবি জানানো হয়। বলা হয়, রাজ্যের খেটে-খাওয়া দরিদ্র মানুষের জন্য রেশন সহ যেসব সরকারি সাহায্য বরাদ্দ হয়েছে তা শুধু অপ্রতুল ও নিম্নমানেরই নয়, এগুলি বন্টনের ক্ষেত্রেও নানা দুর্নীতি চলছে। রাজ্য সম্পাদক এ বিষয়ে সরকারি নজরদারি জোরদার করার দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি সুপারিশ করেছেন, চাল ও আটা মিলিয়ে মাসে মাথাপিছু ১২ কেজি খাদ্য সহ আলু ও ভোজ্য তেল দেওয়ার ব্যবস্থা হোক। প্রত্যেককে রেশন দেওয়া হোক। চিঠিতে বিভিন্ন জায়গায় আটকে পড়া পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশার কথা তুলে ধরে তাঁদের ঘরে ফেরানো ও বর্তমানে যেখানে রয়েছেন, সেখানে উপযুক্ত খাদ্যের ব্যবস্থা করার কথা বলা হয়েছে চিঠিতে। লকডাউনের ফলে হাসপাতালগুলিতে অন্য রোগের চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছে। এদিকে গ্রামীণ ডাক্তারদের পক্ষেও লকডাউনের পরিস্থিতিতে জীবিকা নির্বাহ কঠিন হয়ে পড়ছে। বিষয়টি সমাধানের জন্য তাঁর চিঠিতে সরকারি পদক্ষেপের দাবি জানিয়েছেন রাজ্য সম্পাদক। এছাড়া উত্তরবঙ্গ সহ ঝড়বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষকে সাহায্য দেওয়ার দাবিও জানানো হয় চিঠিতে।