Home / খবর / মদ নিষিদ্ধ করায় বিহারে অপরাধ কমেছে, পশ্চিমবঙ্গ সরকার করবে না কেন?

মদ নিষিদ্ধ করায় বিহারে অপরাধ কমেছে, পশ্চিমবঙ্গ সরকার করবে না কেন?

বছর চারেক আগে বিহার সরকার মদ নিষিদ্ধ করার নির্দেশ জারি করেছিল৷ জনমনে এই দাবিটি ছিল বহুদিনের৷ সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ, বিশেষত মহিলারা, যাদের স্বামীরা মদে আসক্ত, এই দাবিটি নিয়ে দীর্ঘদিন সরব ছিলেন৷ তাঁদের লাগাতার আন্দোলনের চাপেই বিহার সরকার এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিল৷

স্বল্প মজুরির শ্রমিক, আয়হীন কৃষক, হতাশায় নিমজ্জিত বেকার যুবকেরা অনেকেই তাঁদের জীবনযন্ত্রণার জ্বালা জুড়োতে মদের নেশায় বুঁদ হয়ে থাকার পথ বেছে নেন৷ তাদের সামান্য রোজগারের বেশিরভাগটাই চলে যায় মদের ঠেকে৷ ফলে সাংসারিক অশান্তি হয়ে ওঠে নিত্যসঙ্গী৷ এই পরিবেশে শিশু এবং মহিলারা সবচেয়ে বেশি নির্যাতিতা হন৷ ঘরে–বাইরে তাঁদের নির্যাতন যেন স্বাভাবিক ঘটনা হয়ে দাঁড়ায়৷ ভারতের যে কোনও রাজ্যের মতো বিহারের পরিস্থিতিও ছিল ঠিক একই রকম, বরং কিছুটা বেশি খারাপ৷ এই পরিস্থিতিতে দরিদ্রের সংসারের কোণ থেকে উঠে আসা পুঞ্জীভূত ক্ষোভ প্রকাশ পেয়েছিল শিক্ষার আলো বঞ্চিত, আর্থিক শোষণে নিষ্পেষিত, জীবনযুদ্ধে জেরবার গ্রামীণ মহিলাদের সোচ্চার প্রতিবাদের মধ্যে৷ প্রতিবাদের এই স্বরকে ভোটলোভী ক্ষমতালিপ্সু রাজনৈতিক নেতারাও উড়িয়ে দিতে পারেনি৷ সরকারকে নিষিদ্ধ করতে হয়েছিল মদ৷

আজ চার বছর পর বিহার সরকারের মহিলা বিকাশ নিগমের অধীনস্থ জেন্ডার রিসার্চ সেন্টারের সমীক্ষা বলছে, রাজ্যে যেখানে ৫৪ শতাংশ পরিবারে মহিলা এবং শিশুরা গার্হস্থ্য হিংসার শিকার ছিলেন, তা কমে এখন ৫ শতাংশ পরিবারের মধ্যে দাঁড়িয়েছে৷ সংসারে অশান্তি বেশ কিছুটা কমেছে৷ এর আগে ফাইনান্সিয়াল এক্সপ্রেসের রিপোর্টও দেখিয়েছে, মদ নিষিদ্ধ হওয়ার পর বিহারে ৫৫ শতাংশ পথ দুর্ঘটনা, ২৪ শতাংশ হত্যা, ১৬ শতাংশ লুঠ ও ৩৭ শতাংশ মারামারির ঘটনা কমেছে৷ এই অভিজ্ঞতার পর তামিলনাডু সরকারও জনমতের চাপে মদের উপর লাগাম টানতে বাধ্য হয়েছে৷

অথচ পশ্চিমবঙ্গে মদ তৈরি বা বিক্রির উপর নিয়ন্ত্রণ দূরের কথা, তৃণমূল সরকার মদকে সম্ভাবনাময় শিল্প হিসাবে দেখছে৷ মদ বিক্রি করেই সিংহভাগ রাজস্ব আদায়ের পরিকল্পনা করছে৷ রাজস্ববৃদ্ধির অজুহাতে নতুন করে ১২০০ মদের দোকানের লাইসেন্স দিচ্ছে৷ এমনকী সরকার নিজেই পাইকারি মদের ব্যবসায় নামছে৷ নতুন নতুন মদের কারখানা খোলার কথা বলছে৷ জেলায় জেলায়, এমনকী প্রত্যন্ত গ্রামেও কী করে মদ পৌঁছানো যায়, সেই চিন্তায় সরকারের ঘুম নেই৷ অজুহাত হিসাবে দেখানো হচ্ছে বিষাক্ত চোলাই মদ খেয়ে একের পর এক মৃত্যু মিছিলকে৷ ভাবখানা এমন সরকার যেন নিতান্তই দয়া পরবশ হয়ে বিশুদ্ধ মদ মানুষের হাতে তুলে দিতে তৎপর হয়ে উঠেছে৷ কিন্তু গ্রামের ছেলেমেয়েদের উন্নত শিক্ষা, মানুষের উন্নত চিকিৎসা, উন্নত পানীয় জল সরবরাহ ব্যবস্থা, উন্নত কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা, উন্নত নিকাশি ব্যবস্থা, উন্নত সেচ ইত্যাদি নিয়ে তাদের কোনও মাথাব্যথা দেখা যায় না৷

এ রাজ্যে খুন–ধর্ষণ–নারী নির্যাতনের ঘটনা ক্রমাগত বাড়ছে৷ প্রতিদিন দুই বছরের শিশু থেকে শতায়ু বৃদ্ধা পর্যন্ত ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন৷ ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর রিপোর্ট বলছে, ধর্ষণ–নারী নির্যাতনের ঘটনার ৮৫ শতাংশ ক্ষেত্রেই অপরাধীরা মদ্যপ৷ মদের প্রসার এতটাই ভয়াবহ ভাবে বেড়েছে, কিশোর–কিশোরীদেরও তার থেকে মুক্ত রাখা যাচ্ছে না৷ সাম্প্রতিক কালে এক কিশোরীর জন্মদিনের পার্টির হুল্লোড়ে মদের নেশায় আচ্ছন্ন এক কিশোরের মর্মান্তিক মৃত্যু, দমদমের সুক্লে ক্লাসরুমে বসে কিশোরীদের মদ্যপানের ঘটনায় বিবেকবান মানুষ মাত্রেই আঁতকে উঠেছেন৷ এই পরিস্থিতিতে দেশের যৌবনকে ধ্বংস করে মদ বেচা পয়সায় সরকার মানুষের কল্যাণ করবে?

মদ স্নায়ুর উপরে ক্রিয়া করে মানুষের বোধশক্তি–সংযম–ন্যায়নীতিবোধ অকেজো করে দেয়৷  মদ্যপদের বেপরোয়া করে তোলে৷ সেই সময় কোনও চূড়ান্ত অনৈতিক কাজ করতেও তাদের বাধে না৷ এর সাথে শাসক দলের প্রশ্রয়, সমাজের উপর তলার সাথে দুষ্কৃতীদের যোগসাজসে যা খুশি করার অবাধ সুযোগের মেলবন্ধন ঘটলে সমাজে এক ভয়াবহ দুষ্ট শক্তির জন্ম হয়৷ যা সমাজ পরিবেশকে বিষিয়ে তোলে৷ ভোটের সময় ভোটবাজ দলগুলি এই দুষ্ট শক্তিকে ব্যবহার করার লক্ষ্যে তাকে প্রশ্রয় দেয়৷ গণআন্দোলনের জমিকে নষ্ট করতেও এই প্রশ্রয় কাজ দেয়৷ যে কারণে বুর্জোয়া শ্রেণির স্বার্থে ঝান্ডার রঙ নির্বিশেষে শাসকদলগুলি মদের প্রসারের জন্য কাজ করে যায়৷

আশার কথা, মদের প্রসারের বিরুদ্ধে বহু জায়গায় সাধারণ মানুষ বিশেষত মহিলারা রাস্তায় নামছেন৷ মদের ঠেক ভাঙতে, মদের ঢালাও লাইসেন্স রুখতে তাঁরা সক্রিয় ভূমিকা নিচ্ছে৷ মা–বোনেদের পণ– তাঁদের সন্তান ও ভাইদের আর সর্বনাশ হতে দেবেন না৷ এআইএমএসএস এই আন্দোলনকে রাজ্য ভিত্তিতে সংগঠিত রূপ দিতে উদ্যোগ নিয়েছে৷ প্রয়োজন জনগণের সহযোগিতায় এই আন্দোলনের দ্রুত শক্তিশালি করা৷

(গণদাবী : ৭১ বর্ষ ২১ সংখ্যা)