Home / খবর / ফকিরের ঝুলি ভরে দিয়ে এবার নিজেদের ঝুলিও ভরছে ফাটকাবাজরা

ফকিরের ঝুলি ভরে দিয়ে এবার নিজেদের ঝুলিও ভরছে ফাটকাবাজরা

‘ফকিরের’ ঝুলি নাকি ভরে গেছে কারা ভরল? সে প্রশ্নের উত্তর পেতে গিয়ে চোখ পড়ছে শেয়ার বাজারের দিকে৷ ভোট মিটতেই হঠাৎ যেন লাফ দিয়েছে শেয়ার বাজারের সূচক৷ সংবাদপত্রের শিরোনামে বারবারই স্থান পাচ্ছে তেজি শেয়ার বাজারের কথা৷ প্রচার হচ্ছে, বিজেপির সরকার প্রতিষ্ঠায় নিশ্চিন্ত বোধ করছেন বড় বড় বিনিয়োগকারীরা৷

শেয়ার বাজারের এই হঠাৎ রকেট গতির উত্থানের পিছনে রহস্য কী? দেখা যাচ্ছে বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জে ২৪ মে একদিনেই লেনদেন হয়েছে ২ লক্ষ ৬০ হাজার কোটি টাকা৷ এই লেনদেনের বেশিটা হয়েছে মূলত সিকিউরিটি বন্ড, নানা ঋণপত্র , পেনশন ফান্ড ইত্যাদি সুদের ব্যবসায় বিদেশি বিনিয়োগের হাত ধরে৷ যার পোশাকি নাম হল ফরেন পোর্টফোলিও ইনভেস্টমেন্ট৷ একই সাথে পরিমাণে কম হলেও দেশীয় বিনিয়োগও হয়েছে একই কারবারে৷ আর তার সাথে আছে পুরনো শেয়ারের দর নিয়ে ফাটকার লেনদেন৷ এর অর্থ একদিনের মধ্যে এত বিশাল লেনদেনের বেশিরভাগটাই হয়েছে এমন কারবারের হাত ধরে, যার কোনও স্থায়িত্ব নেই৷ ‘ফরেন’ কিংবা নিখাদ দেশি যেটাই হোক না কেন, পোর্টফোলিও ইনভেস্টমেন্ট অর্থাৎ টাকাকড়ি ও সুদের কারবারের এই  শেয়ার বেচাকেনা অনেকটা জুয়াখেলার মতো৷ সুদখোর, ফাটকাবাজ পুঁজি মালিকরা সুযোগ বুঝে এই সমস্ত বন্ড ইত্যাদি কিনতে শুরু করে তার দর হঠাৎ বাড়িয়ে দেয়৷ যার আকর্ষণে সাধারণ মানুষও এগুলি কিনতে শুরু করেন৷ অল্প সময়েই তার থেকে বিপুল মুনাফা তুলে নিয়ে ফাটকাবাজরা বিনিয়োগের পাততাড়ি গুটিয়ে উধাও হয়ে যায়৷

সাধারণ ছোট লগ্নিকারী বা সাধারণ মানুষ যাঁরা শেয়ারে বিনিয়োগ করে সঞ্চয়ের আশা করেন, তাঁদের শেয়ার, ফান্ড, বন্ডের কাগজগুলোর তখন ডাস্টবিন ছাড়া অন্য কোনও গতি থাকে না৷ শেয়ার বাজারের এই বিনিয়োগ মানে কোনওভাবেই শিল্প কিংবা ব্যবসায় নতুন বিনিয়োগ নয়৷ এই লেনদেন যত লক্ষ কোটি টাকাই হোক না কেন, তার সাথে শিল্প চাঙ্গা হওয়া বা ভোগ্যপণ্যের বিক্রি বাড়ার কোনও সম্পর্ক নেই৷ কারণ একই শেয়ারের হাতবদলের জন্য স্টক এক্সচেঞ্জে যে ফাটকার কারবার চলে তাতে বিনিয়োগ হওয়া টাকা কোনও উৎপাদনে ব্যয় হয় না৷

বড় বড় ব্যবসাদার, পুঁজিপতিরা ভোটে বিজেপিকে জেতাতে যে ৯ লক্ষ কোটি টাকা ঢেলেছে তা তারা উসুল করে নেবেই৷ সেই কারণেই নরেন্দ্র মোদিদের জয়ের সংবাদ পেয়েই তারা উল্লসিত৷ তারা কৃত্রিমভাবে শেয়ারের দর একলাফে অনেকটা বাড়িয়ে দিয়ে ওৎ পেতে বসে থাকে৷ সাধারণ লগ্নিকারীরা এই চড়া দরের আকর্ষণে শেয়ার বিক্রি করতে গেলেই ফাটকবাজরা শেয়ারের দাম তলানিতে নামিয়ে দেয়, কমদামে ভাল শেয়ারগুলি কিনে নিয়ে তারা আবার শিকার ধরার আশায় বসে থাকে৷ এইভাবে শেয়ার বাজারের দর কখনও চাঙ্গা হয় কখনও ঝিমিয়ে পড়ে৷ এর সাথে অর্থনীতির সামগ্রিক ভালমন্দের কোনও সম্পর্ক কখনও ছিল না, আজও নেই৷ ‘ফকির’ নরেন্দ্র মোদিজির দল বিজেপির ঝুলি ভরাতে দেশি–বিদেশি সুদখোর পুঁজি মালিক ও ফাটকাবাজরা টাকা ঢেলেছিল৷ এখন চাঙ্গা শেয়ার বাজারের ফাঁদ পেতে তারা তার বহুগুণ বেশি উশুল করছে৷

(গণদাবী : ৭১ বর্ষ ৪২ সংখ্যা)