Home / খবর / ধর্মীয় সংগঠনগুলিকে ভোট প্রচারে নামাচ্ছে বিজেপি ভুলুণ্ঠিত নেতাজি রবীন্দ্রনাথের স্বপ্ন

ধর্মীয় সংগঠনগুলিকে ভোট প্রচারে নামাচ্ছে বিজেপি ভুলুণ্ঠিত নেতাজি রবীন্দ্রনাথের স্বপ্ন

আর এস এস–এর ধর্মভিত্তিক সংগঠনগুলি আগামী নির্বাচনে খোলাখুলি বিজেপির জন্য ভোটের প্রচারে নামতে চলেছে৷ সম্প্রতি সঙেঘর সমন্বয় বৈঠকে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ সহ বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, হিন্দুত্ববাদের প্রয়োজনে কেন বিজেপিকে ক্ষমতায় রাখা দরকার তা প্রচার করতে হবে৷ সঙেঘর পক্ষ থেকে স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে, ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদির যে হাওয়া ছিল তা এবারে নেই৷ ঝুলিতে প্রচারের আর কোনও সম্বল না থাকায় ইতিমধ্যেই রামমন্দির নিয়ে ভোটের প্রচারে নেমে পড়েছে তারা৷ আর এস এস–বিজেপির মতো উগ্র সাম্প্রদায়িক শক্তি যে এই কৌশল অবলম্বন করবে সেটা সকলেরই জানা৷ কিন্তু এই সাম্প্রদায়িক শক্তি এখন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সহ এ দেশের নবজাগরণ তথা স্বাধীনতা আন্দোলনের বড় মানুষদের ছবি হাতে প্রচার শুরু করেছে৷ বড় মানুষদের সম্পর্কে এ দেশের সাধারণ মানুষের মধ্যে যে আবেগ রয়েছে তাকে তারা কাজে লাগাতে চাইছে৷ সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গে রথযাত্রার কর্মসূচিতে নেতাজি–রবীন্দ্রনাথের্ সুসজ্জিত ছবি তারা ব্যবহার করার পরিকল্পনা করেছিল৷ নরেন্দ্র মোদি আন্দামানে গিয়েও নেতাজির নাম করে বক্তব্য রেখেছেন৷ অথচ নেতাজি, রবীন্দ্রনাথ থেকে শুরু করে নবজাগরণের এই মহান সন্তানেরা সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মীয় বিভাজনের প্রবল বিরোধী ছিলেন৷ রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন, ‘‘…মানুষ বলেই মানুষের যে মূল্য সেইটেকেই সহজ প্রতীতির সঙ্গে স্বীকার করাই প্রকৃত ধর্মবুদ্ধি৷ যে দেশে ধর্মই সেই বুদ্ধিকে পীড়িত করে, রাষ্ট্রিক স্বার্থবুদ্ধি কি সে দেশকে বাঁচাতে পারে?’’ রবীন্দ্রনাথ ব্যক্তিগতভাবে ঈশ্বরবিশ্বাসী হয়েও হিন্দুত্ববাদের প্রবল বিরোধী ছিলেন৷ তিনি বলেছেন, ‘‘ভারতবর্ষের কেবল হিন্দু চিত্তকে স্বীকার করলে চলবে না৷ ভারতবর্ষের সাহিত্য, শিল্পকলা, স্থাপত্য, বিজ্ঞান প্রভৃতির বিকাশ ঘটেছে হিন্দু মুসলমানের সংমিশ্রণে বিচিত্র সৃষ্টি হিসাবে৷’’ আর বিজেপি–আর এস এস রবীন্দ্রনাথের ছবিতে মালা দিয়ে রথযাত্রা করছে, ভোটে জেতার লক্ষ্যে সাম্প্রদায়িকতা ছড়িয়ে ভোটব্যাঙ্ক তৈরি করতে৷ এটা কি দেশের মানুষ মানতে পারে?

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু সারা জীবন সেকুলার চিন্তা নিয়ে চলেছেন৷ হিন্দু রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখিয়েই বিজেপি–আরএসএস মানুষকে মাতাতে চায়৷ এই চাওয়া কখনও নেতাজির চাওয়া হতে পারে না৷ নেতাজি বলেছেন– ‘‘হিন্দুরা ভারতের সংখ্যাগরিষ্ঠ বলিয়া ‘হিন্দুরাজের’ ধ্বনি শোনা যায়৷ এগুলি সর্বৈব অলস চিন্তা৷ …হিন্দু ও মুসলমানের স্বার্থ পৃথক– ইহার চেয়ে মিথ্যা বাক্য আর কিছু হইতে পারে না…৷’’ তিনি বলেছেন – ‘‘ধর্মকে সম্পূর্ণরূপে রাজনীতি হইতে বাদ দেওয়া উচিত৷ ধর্ম ব্যক্তিবিশেষের বিষয় হওয়া উচিত৷ ব্যক্তি হিসাবে মানুষ যে ধর্ম পছন্দ করে তাহা অনুসরণ করার পূর্ণ স্বাধীনতা তার থাকিবে৷ কিন্তু ধর্মীয় কিংবা অতীন্দ্রীয় বিষয়ের দ্বারা রাজনীতি পরিচালিত হওয়া উচিত নয়৷ ইহা পরিচালিত হওয়া উচিত শুধু অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও বৈজ্ঞানিক বিচারবুদ্ধির দ্বারা’’ (ক্রসরোডস)৷ আরও বলেছেন– ‘‘সন্ন্যাসী ও সন্ন্যাসিনীদের ত্রিশূল হাতে হিন্দু মহাসভা ভোট ভিক্ষায় পাঠিয়েছে৷ ত্রিশূল আর গেরুয়া বসন দেখলে হিন্দু মাত্রই শির নত করে৷ ধর্মের সুযোগ নিয়ে, ধর্মকে কলুষিত করে হিন্দু মহাসভা রাজনীতির ক্ষেত্রে দেখা দিয়েছে৷ …এই বিশ্বাসঘাতকদের আপনারা রাষ্ট্রীয় জীবন থেকে সরিয়ে দিন, তাদের কথা কেউ শুনবেন না …৷’’

সেই নেতাজির ছবি দেখিয়ে সেই ত্রিশূলধারীদের নামিয়েই জনগণকে বোকা বানিয়ে ভোটে জিততে চায় বিজেপি৷ এই চালাকির রাজনীতি, নেতাজির এই অসম্মান দেশের মানুষ মেনে নেবে কি?

(গণদাবী : ৭১ বর্ষ ২৫ সংখ্যা)