Home / অন্য রাজ্যের খবর / গো–রক্ষার নামে বিজেপির জুলুমে বিপদে পড়েছেন চাষিরা

গো–রক্ষার নামে বিজেপির জুলুমে বিপদে পড়েছেন চাষিরা

স্কুলে, কলেজে, স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ঘর ভর্তি গরুতে হাসির বিষয় নয়, উত্তরপ্রদেশে বিজেপি সরকারের গো–রক্ষার জুলুমের সামনে মরিয়া হয়ে চাষিরা তাদের ফসল বাঁচাতে কয়েক হাজার গরু–বাছুরকে এমনভাবেই ঢুকিয়ে দিয়ে যাচ্ছেন সরকারি অফিসে, স্কুলে৷

বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের রাজত্বে সাধারণ মানুষ তো কোন ছার, গো–রক্ষকরা পুলিশ অফিসারকে পিটিয়ে মারলেও সরকার নড়ে বসে না৷ মুখ্যমন্ত্রী পর্যন্ত অক্লেশে বলে দেন, ইনস্পেক্টর সুবোধ সিংহের হত্যা একটা সামান্য দুর্ঘটনা৷ সরকার গো–রক্ষা নিয়ে বেশি চিন্তিত৷ এর আগে রাজস্থান, গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ঝাড়খণ্ডে বিজেপি–আরএসএসের মদতপুষ্ট গো–রক্ষা বাহিনীর তাণ্ডবে প্রাণ গেছে বেশ কয়েকজন দুধ ব্যবসায়ী ও সাধারণ চাষির৷ ঘরে গরুর মাংস রাখার গুজব ছড়িয়ে দিল্লির উপকণ্ঠেপরিকল্পিত গণপিটুনিতে প্রাণ কেড়ে নেওয়া হয়েছে মহম্মদ আখলাকের৷ কিছুদিন আগে রাজস্থানে গো–সন্তানদের গণপিটুনিতে দুধ ব্যবসায়ী আকবর খানের মৃত্যুর পর সামনে এসেছিল এক সাংঘাতিক সত্য৷

রাজস্থান, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র কিংবা গুজরাটের মতো রাজ্যগুলিতে আরএসএস–বিজেপি–বিশ্বহিন্দু পরিষদ–বজরঙ্গ দলের মতো হিন্দুত্বের স্বঘোষিত অভিভাবক দলের নেতারা ‘গো–রক্ষা’র নামে লক্ষ লক্ষ টাকা কামিয়েছেন ক্ষমতায় থাকার সময়৷ শুধু রাজস্থানের আলোয়ারেই এদের পরিচালনায় বেশ কয়েকটি ‘গোশালা’ চালু হয়েছে৷ হিন্দু মুসলমান নির্বিশেষে যে কেউ রাজস্থানের হাট থেকে গরু, ছাগল, ভেড়া, উট যে কোনও পশুই কিনুক না কেন এই বাহিনীকে তোলা না দিয়ে তাদের উপায় নেই৷ টাকা আদায়ের জন্য এরা চালু করেছে ‘চেকপোস্ট’ যেখানে স্থানীয় থানার পুলিশও গো–রক্ষক বাহিনীর সাথে বখরার ভিত্তিতে পাহারা দেয়৷ পশু কিনে কেউ রাস্তা দিয়ে হেঁটে বা গাড়িতে গেলেই এরা ঝাঁপিয়ে পড়ে৷ টাকা না পেলে কেড়ে নেয় গরু ভেড়া যা পায়৷ এমনকী গো–রক্ষার ধুয়ো তুলে নানা গ্রামে হানা দিয়ে গোরু কেড়ে আনে ওরা৷ টাকা দিয়ে ছাড়াতে পারে না যারা, তাদের পশুগুলিকে আবার বিক্রি করে দেয় এই ‘গো–রক্ষকরা’৷ এদের হাতে পশুপালক উপজাতিদেরও ছাড় নেই৷ ধর্মে হিন্দু ‘রাবারি’ উপজাতির মানুষরা গুজরাট থেকে হাঁটাপথে রাজস্থান এসে পশু কিনে আবার গুজরাটে ফিরে যান৷ বহুকাল ধরে তাঁদের এই জীবিকা চলছে৷ কিন্তু কয়েকবছর ধরে আলোয়ার পার হওয়ার সময় ‘গো–রক্ষা চেকপোস্টে’ তোলা না দিলে জোটে মারধোর৷ জোর করে টাকা কেড়ে নেওয়াটা গো–রক্ষকদের কাছে তো জলভাত৷ আকবর খানের মৃত্যুর পর রাবারি উপজাতির এক মোড়ল সাংবাদিকদের বলেছিলেন, বাঁচতে গেলে ওদের টাকা না দিয়ে উপায় নেই (দ্য টেলিগ্রাফ ২৪ জুলাই, ২০১৮)৷

উত্তরপ্রদেশে বিজেপি সরকার সমস্ত আইনি–বেআইনি কসাইখানা বন্ধ করে দেওয়ায় এবং কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার গবাদি পশুর ব্যবসা নিয়ন্ত্রণের আইন আনার পর থেকে উত্তরপ্রদেশের কৃষকরা এক মারাত্মক সংকটে পড়েছেন৷ বর্তমানে মেশিন–ট্রাক্টরের প্রচলন এতটাই বেড়েছে যে, চাষের কাজে গরু মোষের ব্যবহার প্রায় নেই৷ দুধ উৎপাদনের বয়স পেরিয়ে যাওয়ার পর কৃষকরা তাঁদের উদ্বৃত্ত গোরু–মোষ এতদিন বিক্রি করে দিতে পারতেন৷ কিন্তু সরকারি আইন এবং বিজেপি মদতপুষ্ট গো–রক্ষকদের মারের ভয়ে তাঁরা গরু মোষ নিয়ে কোথাও যেতে ভয় পাচ্ছেন৷ এদিকে ঘরে বসিয়ে গরু–মোষকে খাওয়ানোর সামর্থ্য তাঁদের নেই এবং সেটা অর্থনৈতিক দিক দিয়ে নেহাত অলাভজনক৷ স্বাভাবিক ভাবেই তারা গরু ছেড়ে দিচ্ছেন৷ ফলে বেওয়ারিশ গবাদি পশুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে চলেছে৷ তারা রাস্তাঘাটে দুর্ঘটনার কারণ হচ্ছে, চাষিদের ফসল খেয়ে নষ্ট করছে৷ চাষিরা অসহায়, কারণ কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে গরু আটকাতে গেলে সেই বেড়ায় যদি কোনও গরুর আঘাত লাগে তাতে গো–রক্ষকদের হাতে চাষি পরিবারের হেনস্থা এমনকী খুন হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা আছে৷ এদিকে ছেড়ে দেওয়া বেওয়ারিশ গরু ফসল নষ্ট করায় দুই কৃষক পরিবারে খুনোখুনির ঘটনাও ঘটছে৷ আলিগড়, আগ্রায় মরিয়া চাষিরা বেওয়ারিশ গবাদি পশুর পাল ঠেকাতে অ্যাসিড ছুঁড়েছেন এমন ঘটনাও ঘটছে৷ বিপন্ন কৃষকরা গরুর পাল তাড়িয়ে নিয়ে গিয়ে সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্র, প্রাইমারি বা সেকেন্ডারি স্কুলে ঢুকিয়ে গরুর পালকে বন্দি করে রাখছেন৷ উত্তরপ্রদেশের মথুরায় একটি স্কুলে ৮০০ গরুকে বন্দি করে তাঁরা পুলিশ ডেকেছেন৷ এমন ঘটনা বহু স্থানে ঘটছে৷ ক্ষতি হচ্ছে ছাত্রদেরও৷ বিপদে পড়েছেন ডেয়ারি চাষিরাও৷ আগে রাজস্থান–হরিয়ানায় নিয়মিত দুধেল গাইয়ের মেলা হত৷ তাঁরা সেখান থেকে প্রয়োজন মতো গরু কিনতে পারতেন৷ এখন গো–রক্ষকদের ভয়ে গরু নিয়ে কেউ রাস্তায় বার হতে পারে না৷ ফলে মেলাও বন্ধ৷

উত্তরপ্রদেশ সরকার গোশালা করার নামে কয়েক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করছে৷ গো–রাজনীতির জোয়ারের টানেই বিজেপি ২০১৯–এর ভোট বৈতরণী পার হওয়ার পরিকল্পনা করছে৷ তাদের গো–রক্ষার ভণ্ডামিতে শুধু চাষিরা মরছেন তাই নয়, গবাদি পশুগুলিও চূড়ান্ত কষ্টে পড়ছে৷ রাজস্থান, মহারাষ্ট্র, হরিয়ানায় সম্প্রতি গোশালার অব্যবস্থায়, খাদ্য–জলের অভাবে প্রাণ হারিয়েছে কয়েক হাজার গবাদি পশু৷ তাতে বিজেপির কিছু আসে যায় না৷ তারা হিসাব করছে মানুষের ধর্মবিশ্বাসকে ভোটব্যাঙ্কের পকেটে পুরতে৷

ভোটব্যাঙ্ক হারানোর আশঙ্কায় কংগ্রেস এই গো–রাজনীতির বিরুদ্ধে কোনও কথা বলা দূরে থাক, হিন্দুত্ববাদী রাজনীতির পালেই হাওয়া লাগাচ্ছে৷ কংগ্রেস সভাপতি মন্দিরে মন্দিরে পৈতে দেখিয়ে বেড়াচ্ছেন৷ বিজেপি–কংগ্রেস উভয়েরই নীতিহীন ভ্রষ্ট রাজনীতির শিকার হচ্ছেন ধর্ম–বর্ণ নির্বিশেষে সাধারণ কৃষক– যাঁরা গবাদি পশুকে নিয়ে প্রজন্মের পর প্রজন্ম দিন কাটিয়েছেন, তাদের ব্যবহার করেছেন, যত্ন করেছেন, আবার প্রয়োজনে বিক্রি করে দিয়েছেন৷ তাতে গরুর সংখ্যা কমেনি শুধু নয়, নিজের প্রয়োজনেই মানুষ গবাদি পশুর উন্নতিতে মন দিয়েছে৷ সাম্প্রদায়িক ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতি এই স্বাভাবিক প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করায় কৃষকের স্বাভাবিক জীবনযাপনেই সংকট নেমে এসেছে৷ সাম্প্রদায়িক সুড়সুড়ির সস্তা রাজনীতির চমক যে সমাজের কী মারাত্মক ক্ষতি করে, এ তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ৷

(গণদাবী : ৭১ বর্ষ ২৩ সংখ্যা)