Breaking News
Home / অন্য রাজ্যের খবর / কাশ্মীরের বুকে মাথা তুলেছে অনেক দেওয়াল

কাশ্মীরের বুকে মাথা তুলেছে অনেক দেওয়াল

সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপ করে প্রধানমন্ত্রী জোর গলায় বলেছিলেন, কাশ্মীর আর বাকি ভারতের মধ্যে যে দেওয়াল ছিল তা আমি সরিয়ে দিয়েছি৷

নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরা দেওয়াল ভেঙেছেন? কোথায়? কাশ্মীরের বুকে আজ অসংখ্য দেওয়াল৷ ছাত্রদের সামনে দেওয়াল, তারা স্কুল–কলেজে যেতে পারছে না৷ উচ্চস্তরের পঠন পাঠন, গবেষণা আর সর্বভারতীয় পরীক্ষার নাগাল থেকে তারা বিচ্ছিন্ন ইন্টারনেট বন্ধের দেওয়ালে৷ সাধারণ মানুষের চলা ফেরার উপর দেওয়াল, রাজধানী শ্রীনগর সহ সর্বত্র কাঁটাতারের বেড়ায় বন্দি মানুষ৷ দেওয়াল উঠেছে গোটা জগৎ আর কাশ্মীরের মধ্যে– দীর্ঘ পাঁচমাস স্তব্ধ ইন্টারনেট আর মোবাইল ফোন পরিষেবার বেশিরভাগ৷ সরকারি ভাষ্য পরিবেশন করে যারা, সংবাদমাধ্যমের সেই অংশটি ছাড়া বাকিদের সামনে অলঙঘ্য নিষেধাজ্ঞার দেওয়াল৷ জীবনদায়ী ওষুধ সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনা বেচার সামনেও দেওয়াল তুলেছে ইন্টারনেটের অভাব৷ অসুস্থ মানুষ ও চিকিৎসা ব্যবস্থার মধ্যে খাড়া হয়ে আছে এই দেওয়াল৷ তাই শ্রীনগরের অধ্যাপিকা তসলিমাকে বলতে হয়, ‘এ পর্যন্ত ইন্টারনেট না থাকায় হাসপাতালে কত জনের মৃত্যু হয়েছে সেই হিসেবটা সরকার করেছে কি? সরকার কাশ্মীরে হত্যালীলায় মেতেছে’ (আনন্দবাজার পত্রিকা, ১.১.২০২০)৷ অনেক দিন ঝুলিয়ে রেখে অবশেষে সুপ্রিম কোর্ট ১০ জানুয়ারি এক রায়ে বলেছে, অনির্দিষ্টকালের জন্য ইন্টারনেট বন্ধ করা মৌলিক অধিকারে হস্তক্ষেপ৷ আরও বলেছে, বারবার ১৪৪ ধারা জারি করা ক্ষমতার অপব্যবহার৷ আদালতের অভিমত, যুক্তিসঙ্গত মত প্রকাশ ও বিক্ষোভ রুখতে দীর্ঘকাল ১৪৪ ধারা জারি করে রাখা যায় না (ওই, ১১.১.২০২০)৷ এই সামান্য কথাগুলিই তো বারবার বলার চেষ্টা করেছেন কাশ্মীরের সাধারণ মানুষ৷ নিষেধাজ্ঞার দেওয়াল তুলে তাঁদের বক্তব্য গোটা ভারতের কাছে পৌঁছতে দেয়নি বিজেপি সরকার৷

অথচ প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং বিজেপি নেতা থেকে শুরু করে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা একযোগে বলে চলেছেন, কাশ্মীর একেবারে স্বাভাবিক৷ কোথাও বিক্ষোভ নেই, সেনাবাহিনীর সাথে মানুষের সংঘর্ষও কমে গেছে৷ ৯৯ শতাংশ পরীক্ষার্থী তাদের বাৎসরিক পরীক্ষা দিয়েছে৷ তাঁরা বোঝাচ্ছেন, কেন্দ্রের উদ্যোগে উন্নয়নের জোয়ার বইতে শুরু করল বলে!

উন্নয়ন?

অথচ বাস্তব কী বলছে? গত আগস্ট মাসের পর থেকে কাশ্মীরের ব্যবসা–বাণিজ্য কার্যত শিকেয় উঠেছে৷ ‘কাশ্মীর চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’–র রিপোর্ট বলছে, ৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা উঠে যাওয়ার পর চার মাসে কাশ্মীরের আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৭,৮৭৮ কোটি টাকা৷ কাজ হারিয়েছেন কমপক্ষে ৫ লক্ষ মানুষ (বর্তমান, ২১.১২.২০১৯)৷ কাশ্মীর মূলত কৃষিপ্রধান রাজ্য৷ এখানকার গ্রামীণ অর্থনীতি নির্ভর করে ফল, ফুল এবং শাকসবজি উৎপাদন ও বিক্রির উপর৷ ৩৭০ ধারা বিলোপের পর থেকে গোটা কাশ্মীর উপত্যকা সামরিক কবজায়৷ পুলিশ–মিলিটারির দাপাদাপির ফলে গোটা কাশ্মীরে যান চলাচল কার্যত বন্ধ৷ সারা দেশের ফল ব্যবসায়ীরা গত আগস্ট  মাস থেকে কাশ্মীরের বাগানগুলিতে যেতে পারেননি৷ আঙুর–ন্যাসপাতি–চেরি ফল–আপেল বাগানে বাগানে পড়ে নষ্ট হয়েছে৷ যানবাহন নেই, ফলে তা দেশ–বিদেশের বাজারে পাঠানো যায়নি৷ পড়ে পড়ে মার খেয়েছেন চাষিরা৷ তাঁদের কান্নায় কিছুমাত্র যায়–আসে না অমিত শাহদের৷ এসব তাঁদের চোখে বোধহয় উন্নয়নের ‘কো–ল্যাটারাল ড্যামেজ’ গত নভেম্বরে এআইকেকেএমএস–এর সর্বভারতীয় সভাপতি কমরেড সত্যবান সহ সর্বভারতীয় কৃষক সংগঠনগুলির ৭ জন প্রতিনিধি কাশ্মীর উপত্যকার গান্ধারবাল, গামপোল, পুলওয়ামা, কুলগাম এবং অনন্তনাগের চাষিদের বেশকিছু খামার ঘুরে দেখেন৷ তাঁরা কুলগামে কৃষকদের নিয়ে গণ–শুনানির আয়োজন করেন৷ ফল–ফুল চাষি সংগঠন ও বণিকসভার প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করার পর তাঁদের উপলব্ধি, চাষিদের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়৷

কাশ্মীরের অন্যতম প্রধান ব্যবসা পর্যটন৷ বড়দিন ও নতুন বছরের ছুটি কাটাতে, তুষারপাত সহ প্রকৃতির অনুপম সৌন্দর্য উপভোগ করতে এই সময় দেশ–বিদেশের বহু পর্যটক আসেন৷ কিন্তু এবার ছুটির এই মরশুমেও কার্যত খালি রইল কাশ্মীর উপত্যকা৷ বিশেষত স্কি–রিসর্ট গুলমার্গ৷ পর্যটন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতা ফারুক আহমেদ কুথুরের বক্তব্য, অন্যান্য বার এই সময় সমস্ত হোটেল, রিসর্ট পুরো ভর্তি থাকে, সেখানে এ বার মাত্র ১০–১৫ শতাংশ ভর্তি (আনন্দবাজার পত্রিকা, ২৬.১২.১৯)৷ এত বিধিনিষেধ ও আতঙ্ক– এরকম অস্বাভাবিক অবস্থায় পর্যটক আসবে কোন ভরসায়? তাই বিখ্যাত ডাল লেকের হাউসবোট, শিকারাগুলি খালি গত পাঁচ মাস ধরে৷ এভাবেই ধীরে ধীরে পঙ্গু হয়ে যাচ্ছে পর্যটন শিল্প– কাশ্মীরের অর্থনীতির ‘জীবন রেখা’৷

স্বাভাবিক?

কাশ্মীর এখন সংবাদ শিরোনামে নেই৷ আজ এনআরসি, সিএএ নিয়ে দেশজোড়া বিক্ষোভ আর বিতর্কের আবহ৷ তবে একটা প্রশ্ন দেশবাসীর মনে জাগছে, সরকারের দাবি অনুযায়ী যদি সবকিছু ঠিকঠাক চলে, কাশ্মীর যদি সত্যিই স্বাভাবিক হয়, তাহলে গত আগস্ট মাস থেকে তিনজন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ, ওমর আবদুল্লাহ ও মেহবুবা মুফতি সহ কাশ্মীরের প্রথম সারির সমস্ত নেতা ও বহু সংখ্যক রাজনৈতিক কর্মীকে বন্দি করে রাখা হয়েছে কেন? সরকারি হিসাব মতে বর্তমানে এই সংখ্যাটা প্রায় এগারোশো৷ এরা প্রত্যেকেই ভারতীয় সংসদীয় ব্যবস্থার অংশীদার এবং কাশ্মীরের জনসাধারণের চোখে ভারতপন্থী নেতা বলেই পরিচিত৷ এর মধ্যে মেহবুবা মুফতির মুখ্যমন্ত্রীত্বে কাশ্মীরে সরকারের শরিক ছিল বিজেপি৷ কেন্দ্রীয় সরকারের তথ্য অনুযায়ী জম্মু–কাশ্মীরের তিন শতাধিক রাজনৈতিক নেতা–কর্মীকে উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান, হরিয়ানা, গুজরাতের জেলগুলিতে আটকে রাখা হয়েছে৷ সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের নৈনি জেলে বন্দি অবস্থায় একজন কাশ্মীরি নেতার মৃত্যুসংবাদ খবরে এসেছে৷

তথ্যের অধিকার আইনে জম্মুর বাসিন্দা রোহিত চৌধুরীর প্রশ্নের উত্তরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, ২০১৯–এর আগস্ট থেকে নভেম্বর – এই চার মাসে জম্মু–কাশ্মীরে বিক্ষোভ এবং সেনা–আধা সেনা বা পুলিশের দিকে পাথর ছোঁড়ার ঘটনা বেড়েছে৷ এই সময়ের মধ্যে তার সংখ্যা ১১৯৩৷ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের মন্ত্রক ৩ ডিসেম্বর লোকসভায় লিখিত উত্তরে বলেছিল, এই চার মাসে কাশ্মীরে সন্ত্রাসবাদী হামলা ঘটেছে ৩০৯টি, যেখানে গত বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই– এই সাত মাসে তা ছিল ২৮২ (দ্য হিন্দু, ৬.১.২০২০)৷ প্রবল ঠাণ্ডাতেও বিক্ষোভের এই নমুনা দেখে সদ্য বন্দিদশা থেকে মুক্তি পাওয়া এক প্রবীণ কাশ্মীরি রাজনীতিকের আশঙ্কা–‘মনে হচ্ছে উপত্যকায় এবারের গ্রীষ্ম রক্তাক্ত হতে পারে৷…নানা সূত্রে গ্রীষ্মে রক্তপাতের ইঙ্গিত পাচ্ছি’ (আনন্দবাজার পত্রিকা, ১.১.২০২০)

৫ আগস্ট থেকে, জম্মু–কাশ্মীরের প্রশাসন বড় বড় মসজিদগুলি বন্ধ করে দিয়েছে৷ বন্ধ হয়েছে বড় মসজিদে সমবেত নামাজ পাঠ৷ শুক্রবারের সমবেত নামাজ পাঠ একটানা বন্ধ রয়েছে শ্রীনগরের বিখ্যাত জামা মসজিদে৷ নমো নমো করে পালিত হয়েছে ঈদ৷ ইসলাম ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা হজরত মহম্মদের জন্মদিনে প্রতি বছর অন্তত ৫০ হাজার মানুষ আসেন হজরতবাল দরগায়৷ এবারে তার অনুমতি দেওয়া হয়নি৷ জামা মসজিদের পাশে নওহাটার বাসিন্দা খালিদ বসির দুয়ার ভাষায়, ‘সরকার এখন কাশ্মীরিদের যে কোনও জমায়েতকেই ভয়ের চোখে দেখছে’৷ এমনকি চরার এ শরিফের সুফি সম্প্রদায়ের দরগায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানে মানুষকে যেতে দেওয়া হচ্ছে না৷ কাশ্মীর উপত্যকার প্রবীণ মানুষদের বক্তব্য, ১৯৮৯–৯০ সালে যখন উগ্রপন্থী কার্যকলাপ চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছিল, পাশাপাশি সরকারি দমন–পীড়ন সমানতালে চলেছিল, তখনও এরকম ঘটনা ঘটেনি৷

জরুরি অবস্থা?

কাশ্মীর উপত্যকায় এখন যেন অঘোষিত জরুরি অবস্থা চলছে৷ সরকারি ও পেটোয়া সংবাদমাধ্যম ছাড়া অন্য সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকদের কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না৷ ‘অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের’ সাংবাদিক ইয়াসিন দার  গত ১০ ডিসেম্বর লিখেছেন,‘‘গত সপ্তাহে এক সাংবাদিক যখন শ্রীনগরে বন্ধ জামা মসজিদের ছবি তুলছিলেন, একজন স্থানীয় পুলিশ তাঁকে সাবধান করে বললেন, ‘‘আপনি এখান থেকে পালান৷ ওরা যদি এসে দেখে আপনি সাংবাদিক, ছবি তুলছেন তাহলে পেটাবে’’৷ ‘ওরা’ মানে ভারতীয় সশস্ত্র আধা সামরিক বাহিনীর যে দলটা ৬০০ বছরের সুপ্রাচীন জামা মসজিদ পাহারা দিচ্ছে৷

‘দি গ্লোব’ পত্রিকার এশিয়ার সংবাদদাতা নাথান ভ্যানডার ক্লিপ ২১ নভেম্বর পর্যটক হিসেবে কাশ্মীর উপত্যকা সফর করে তাঁর অভিজ্ঞতা লিখেছেন, ‘‘তুষারশুভ্র হিমালয়ের পাদদেশে, সবুজ গালিচার ওপর ঘোড়াগুলো চরছে৷ কোনও পর্যটক বা তীর্থযাত্রী নেই যাদের বহন করবে৷ ফলে মালিকদেরও কোনও আয় নেই কার্যত আগস্ট মাস থেকে৷ বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক কয়েক মাস যাবৎ স্কুল বন্ধ থাকার জন্য দৈনিক ১০০ টাকা মজুরিতে পাথর বহন করছেন৷ ছোট ছোট ছেলেরা সারাদিন রাস্তায় ক্রিকেট খেলছে, তাদের স্কুল নেই৷ রাস্তায় ট্রাফিক নেই৷ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে রোজগারের জন্য৷ কলকাতার মতো বড় শহরে তারা কাশ্মীরি শাল, গরম পোশাক বিক্রি করছে৷ স্কুলে বাৎসরিক পরীক্ষা হলেও কলেজ–বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস কার্যত বন্ধ৷ রাস্তার ধারে সারি সারি দোকান রয়েছে, কিন্তু তাদের ‘শাটার’ নামানো৷ ‘ভূস্বর্গ’ কাশ্মীরের বাইরের শান্ত চেহারার নিচে জ্বলছে বিক্ষোভের ধিকি ধিকি আগুন৷ শ্রীনগর এখন স্তব্ধ– কলতান অদৃশ্য হয়ে শহরের বুকে চেপে বসেছে এক অদ্ভুত নৈঃশব্দ– যেন কবরের নীরবতা ডাল লেক থেকে শুরু করে আপেলের বাগান কোথাও কোনও ব্যস্ততা নেই৷ এরকম স্ব–আরোপিত ‘হরতাল’ কাশ্মীর কখনও দেখেনি৷ সরকার নিজেও ১১ অক্টোবর কাশ্মীরের সব সংবাদপত্রে প্রথম পাতা জুড়ে বিজ্ঞাপন দিয়ে বলেছে, মানুষ নিজে থেকেই দোকান খুলছেন না, গণপরিহণ ব্যবহার করছেন না, সরকারের কাছে আসছেন না৷ প্রশ্ন করেছে, ‘কীসের ভয়?’’ (এনডি টিভি ১১.১০.২০১৯)৷

তাই বন্ধ জামা মসজিদের গায়ে জ্বলজ্বল করছে ভারত সরকার বিরোধী দেওয়াল লিখন৷ ঝিলম নদীর তীর ঘেঁষে দেওয়ালে লেখা,‘তোমরা আমাদের হত্যা করতে পারো, কিন্তু নোয়াতে পারবে না৷’ অনন্তনাগের পাহাড়ের নিচে দেওয়ালে লেখা,‘আমাদের অধিকার ফিরিয়ে দাও’৷ ১৯৫০ সালে মুম্বইয়ের ‘কারেন্ট’ পত্রিকায় ঔপন্যাসিক ও চিত্রনাট্যকার খাজা মহম্মদ আব্বাস লিখেছিলেন, ভারত সরকার যদি কাশ্মীরের মন জয় করতে চায়, তাহলে তাদের নীতিনিষ্ঠভাবে ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিকে বজায় রাখতে হবে৷ আজকের ভারত সরকারকে দেখলে মনে হয়, এ নেহাতই দুরাশা!

৩৭০ ধারা বিলোপের মাধ্যমে স্বায়ত্তশাসনের শেষ চিহ্ণটুকু অপসারিত হওয়ার পর, কাশ্মীরি জনগণ ভারত সরকারের তরফে যে বিশ্বাসভঙ্গের বেদনায় ভুগছেন, তা নিয়ে ঠিক এই আশঙ্কাই ব্যক্ত করেছিল এস ইউ সি আই (কমিউনিস্ট)৷ কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূলের মতো সমস্ত বিরোধী দলগুলি যখন ৩৭০ ধারা বিলোপের বিরুদ্ধতার নামে শুধু পদ্ধতিগত প্রশ্নের মধ্যেই ঘুরপাক খেয়েছে, সেই সময় একমাত্র এস ইউ সি আই (কমিউনিস্ট) দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ৬ আগস্টের (২০১৯) বিবৃতিতে বলেছিল, ‘‘একতরফা ভাবে জম্মু–কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা রদ এবং রাজ্য হিসেবে তার মর্যাদা কেডে নেওয়ার সিদ্ধান্ত কাশ্মীরবাসীকে আহত করবে, তাদের বাকি ভারত থেকে দূরে ঠেলে দেবে৷ এর সুযোগ নেবে পাকিস্তানের মদতপুষ্ট বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি৷’’ দুঃখের হলেও আজ বারবার সে আশঙ্কার সত্যতা প্রমাণিত হচ্ছে৷ দিল্লির কেন্দ্রীয় সরকারে আসীন বিজেপি নেতৃত্ব কাশ্মীরের এই দেওয়াল লিখন পড়তে পারছেন কি?

(গণদাবী : ৭২ বর্ষ ২৩ সংখ্যা)