Home / খবর / কলেজ স্থাপন জরুরি (পাঠকের মতামত)

কলেজ স্থাপন জরুরি (পাঠকের মতামত)

 

স্বাধীনতার ৭৪ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পরও উত্তর দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত তিনটি ব্লক হেমতাবাদ ও গোয়ালপোখর-১, গোয়ালপোখর-২ শিক্ষা, সড়ক পরিবহণ ও স্বাস্থ্যব্যবস্থার দিক থেকে অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছে।

হেমতাবাদ ব্লকে উচ্চমাধ্যমিক ও জুনিয়র মিলিয়ে ১৩টি বিদ্যালয় ও ৪টি হাই মাদ্রাসা রয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে উচ্চবিদ্যালয়ে প্রায় ১৩-১৪ হাজার ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করে এবং হেমতাবাদ থেকে প্রতি বছর উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে কয়েক হাজার ছাত্রছাত্রী ৩০-৩৫ কিলোমিটার দূরে, কোথাও তারও বেশি দূরের স্কুলে যেতে হয়। রায়গঞ্জ অথবা কালিয়াগঞ্জ কলেজে আসতে অধিকাংশ ছাত্রছাত্রীর প্রতিদিন বিপুল খরচ হওয়ায় অনেকেই নিয়মিত ক্লাস করতে পারে না। হেমতাবাদ ব্লক জুড়ে বিভিন্ন জায়গায় রাস্তাঘাট জরাজীর্ণ হওয়ায় প্রায় দুর্ঘটনা ঘটে। মুমূর্ষু রোগী নিয়ে হাসপাতালে সঠিক সময়ে পৌঁছানো যায় না। দূরত্ব অনেকখানি হওয়ায় অভিভাবকরা মেয়েদের রায়গঞ্জে কিংবা কালিয়াগঞ্জে উচ্চশিক্ষার জন্য পাঠাতে চান না। ফলে ছাত্রীদের অল্প বয়সে বিয়ে হয়ে যায় এবং উচ্চশিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়। তাই এই এলাকায় ছাত্রছাত্রী ও এলাকাবাসীর দাবি মেনে হেমতাবাদে একটি কলেজ স্থাপন করা অত্যন্ত জরুরি।

উত্তর দিনাজপুর জেলার অন্য দুই ব্লক গোয়ালপোখর-১ ও গোয়ালপোখর-২ ব্লক মিলে ২০টি হাইস্কুল ও কয়েকটি মাদ্রাসা থাকা সত্ত্বেও উচ্চশিক্ষার জগত থেকে বিচ্ছিন্ন সেখানকার ছাত্র-ছাত্রীরা। মাদ্রাসা ও জুনিয়র হাইস্কুল মিলে প্রায় ৩৫ হাজার ছাত্র-ছাত্রী বিদ্যালয়গুলোতে পড়াশোনা করে কিন্তু উচ্চমাধ্যমিক পাশ করার পর কলেজে ভর্তি হওয়ার জন্য ডালখোলা, রায়গঞ্জ অথবা ইসলামপুরের যেতে হয়। দুটি ব্লক থেকে রায়গঞ্জের কলেজের দূরত্ব ৫০ থেকে ৮০ কিলোমিটার এবং এখানে সরাসরি কোনও যোগাযোগ ব্যবস্থা নেই। ডালখোলা কলেজের দূরত্ব ৩০-৪০ কিলোমিটার। এখান থেকেও গোয়ালপোখরে সরাসরি যাওয়ার কোনও ব্যবস্থা নেই। ইসলামপুরের থেকে গোয়ালপোখরের বিভিন্ন জায়গার দূরত্ব ২৫ থেকে ৫৫ কিলোমিটার। একমাত্র ইসলামপুর থেকে গোয়ালপোখরের সরাসরি সড়ক ব্যবস্থা থাকলেও তা অপ্রতুল।

উত্তর দিনাজপুর জেলার শিক্ষার সার্বিক উন্নয়নের স্বার্থে অন্যান্য পরিষেবার মতো রাজ্য সরকারের কাছে দুটি ব্লকের নাগরিকদের দীর্ঘদিনের দাবি– অবিলম্বে হেমতাবাদ ও গোয়ালপোখর ব্লকে কলেজ স্থাপন করে ছাত্রছাত্রীদের উচ্চশিক্ষার সুযোগ দিতে হবে। প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে রাস্তাঘাট উন্নত করে নাগরিকদের যাতায়াতের সুব্যবস্থা করতে হবে।

শ্যামল দত্ত

রায়গঞ্জ, উত্তর দিনাজপুর