Breaking News
Home / খবর / করোনা ও আমপানে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ত্রাণ

করোনা ও আমপানে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ত্রাণ

দার্জিলিং জেলার বালাসন এলাকায় পাঁচটি জায়গায় কমিউনিটি কিচেনের ব্যবস্থা করে দলের পক্ষ থেকে প্রায় আড়াই থেকে তিন হাজার মানুষকে খাবার দেওয়া হয়। করোনায় কাজ হারানো মানুষদের জন্য ত্রাণশিবিরে খাদ্য বিতরণ।

সরকারি কর্মচারীদের ত্রাণ বিতরণ

২৯ মে পশ্চিমবঙ্গ সরকারি কর্মচারী ইউনিয়ন বাঁকুড়া জেলা কমিটির পক্ষ থেকে করোনা পরিস্থিতিতে ৬২ জন রিক্সচালক সহ পরিচারিকা, নির্মাণকর্মী ও অটোচালক পরিবারের হাতে ত্রাণসামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। মাচানতলায় সরকারি চালক ও কারিগরি সমিতির অফিসে দুঃস্থ পরিবারগুলির হাতে চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, সয়াবিন, ডিম, ভোজ্য তেল ও সাবান ত্রাণসামগ্রী হিসাবে তুলে দেওয়া হয়। উপস্থিত ছিলেন জেলা সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ, বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ইউনিটের সম্পাদিকা সন্ধ্যা বরাট সহ ইউনিয়নের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ। ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ২৩ এপ্রিল ও ৮ মে দুঃস্থ মানুষের হাতে ত্রাণ তুলে দেওয়া হয়েছিল। সংগঠনের পক্ষ থেকে মধ্য কলকাতায় দুঃস্থ মানুষদের ত্রাণ দেওয়া হয়।

ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠি দিয়ে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শুভাশীষ দাস দাবি জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কর্মচারীদের যাতায়াতের ব্যবস্থা, অফিস স্যানিটাইজ করা, স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী সরবরাহ, সামাজিক নিরাপত্তা ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

 খড়গপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার ত্রাণ বিতরণ
আমপানে ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুকে জেলাশাসক দপ্তরে বিক্ষোভ ও ডেপুটেশন। উপস্থিত ছিলেন জেলা সম্পাদক কমরেড অনুরূপা দাস সহ অন্যরা
ওড়িশার ৫৫ ও ১৬ নম্বর জাতীয় সড়কে মাঙ্গুলি স্কোয়ার ও নির্গুন্ডি টোল গেটে এস ইউ সি আই (সি) এবং ডিএসও-র কটক জেলা কমিটির পক্ষ থেকে লাগাতার পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হয়
দার্জিলিংয়ে চা-বাগানে করোনা-দুর্গতদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ