Breaking News
Home / অন্য রাজ্যের খবর / কমরেড প্রদীপ কুমার দেব এর জীবনাবসান

কমরেড প্রদীপ কুমার দেব এর জীবনাবসান

আসামে এস ইউ সি আই (সি)-র কাছাড় জেলা কমিটির পূর্বতন সম্পাদক ও গণআন্দোলনের অন্যতম নেতা কমরেড প্রদীপ কুমার দেব ৬ আগস্ট রাতে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

কমরেড প্রদীপ কুমার দেব ১৯৮২ সালে এ যুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মার্কসবাদী চিন্তানায়ক ও দার্শনিক কমরেড শিবদাস ঘোষের চিন্তাধারার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে দলের কাজ শুরু করেন। সেই সময় আসাম রাজ্য সম্পাদক, বর্তমান পলিটবুরো সদস্য কমরেড অসিত ভট্টাচার্যের সাহচর্য ও তত্ত্বাবধানে তিনি রাজনৈতিক কাজকর্মের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক সংগঠন, ক্লাব গড়ে তোলার কাজ করতে থাকেন। সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় ১৯৮৮ সালে দলের প্রথম কংগ্রেসের প্রাক্কালে অনুষ্ঠিত শিলচর আঞ্চলিক কমিটির সম্মেলনে তিনি সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে তৎকালীন কাছাড় জেলা কমিটির সম্পাদক কমরেড সজল চৌধুরীর মৃত্যু হলে তিনি ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে যেতে থাকেন।

শিলচরের প্রাণকেন্দ্র ডাকবাংলো মোড়ে শহিদ ক্ষুদিরাম বসুর পূর্ণাবয়ব মূর্তি প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত হলে তিনি মূর্তি নির্মাণ কমিটির সম্পাদকের গুরুদায়িত্ব পালন করেন। ২০১৫ সালে আসামে এনআরসি তৈরির নামে ভাষিক ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার চক্রান্তের বিরুদ্ধে আন্দোলনে বরাক উপত্যকার তিন জেলার নাগরিকদের নিয়ে ‘নাগরিকত্ব সুরক্ষা সংগ্রাম সমিতি’-র কাছাড় জেলা আহ্বায়ক হিসাবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। পরবর্তীকালে ২০১৮ সালে এনআরসি বিরোধী আন্দোলনের ৪৩টি সংগঠনের যৌথ মঞ্চ ‘নাগরিক অধিকার রক্ষা সমন্বয় সমিতি, আসাম’-এর কেন্দ্রীয় কোষাধ্যক্ষ হিসাবে এবং আন্দোলন বিস্তারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে গেছেন। ২০০৯ সাল থেকে শিলচর লামডিং রেলপথ ব্রডগেজ করার দাবিতে গড়ে ওঠা ব্রডগেজ রূপায়ণ সংগ্রাম কমিটির আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। পেশায় শিক্ষক কমরেড প্রদীপ দেব শিক্ষক আন্দোলনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। অবসর গ্রহণের পর পেনসনভোগীদের দাবি আদায়ে পেনসনার্স অ্যাসোসিয়েশনেও তিনি সক্রিয় ছিলেন। শিলচর শহরের পৌর সমস্যা সমাধানে ‘নাগরিক স্বার্থ রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের’ কার্যকরী সদস্য হিসাবে বহু আন্দোলনে নেতৃত্বকারী ভূমিকা নেন। এ ছাড়াও জেলায় বামপন্থী আন্দোলনের একজন নেতা হিসাবে, মনীষীদের আদর্শের প্রসারে নানা কর্মসূচিতে তাঁর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। ২০১৪ সালের বিধানসভার উপনির্বাচনে এবং ২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনে দলের প্রার্থী হিসাবে তিনি শিলচর বিধানসভা আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

কমরেড প্রদীপ কুমার দেবের মৃত্যুতে গোটা বরাক উপত্যকায় প্রগতিশীল মানুষ ও বামপন্থী আন্দোলনের নেতা-কর্মীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। দলের নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও বহু সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা উপস্থিত হয়ে তাঁর মরদেহে পূষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান।

১৪ আগস্ট শিলচরের মধ্য শহর সাংস্কৃতিক সংস্থার হলে তাঁর স্মরণসভায় দলের পলিটবুরো সদস্য কমরেড অসিত ভট্টাচার্যের শোকবার্তা পাঠ করা হয়। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড চন্দ্রলেখা দাসের পক্ষে এবং দলের কাছাড়, হাইলাকান্দি, করিমগঞ্জ জেলা কমিটি সহ নানা গণসংগঠনের পক্ষ থেকে মাল্যদান করা হয়। প্রধান বক্তা ছিলেন পলিটবুরো সদস্য কমরেড কান্তিময় দেব।

কমরেড প্রদীপ কুমার দেব লাল সেলাম

গণদাবী ৭৪ বর্ষ ৫ সংখ্যা (২৭ আগস্ট ২০২১)