Home / খবর / কংগ্রেস থেকে বিজেপি, কয়লা কেলেঙ্কারি চলছেই

কংগ্রেস থেকে বিজেপি, কয়লা কেলেঙ্কারি চলছেই

প্রথমে ৫০ হাজার কোটি, পরে ২৯ হাজার কোটি– একের পর এক কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত বিজেপির পরমপ্রিয় শিল্পপতি গৌতম আদানি এবং অনিল আম্বানি গোষ্ঠী৷ অভিযোগ শুধু বিরোধী দলের নয়, সম্প্রতি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির অধীনস্থ খোদ রাজস্ব গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ (ডিআরআই) ইন্দোনেশিয়া থেকে কয়লা আমদানি নিয়ে ২৯ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতির কথা জানিয়েছে৷

২০১৪ সালের অক্টোবরে ডিআরআই কয়লা আমদানিতে বড় দুর্নীতির অভিযোগ করে৷ ২০১৬ সালের ১৬ মার্চ ওই গোয়েন্দা সংস্থা জানায়, ৪০টি সংস্থা সন্দেহের তালিকায়, এর মধ্যে রয়েছে আম্বানি ও আদানিদের সংস্থা৷ কয়লা আমদানিতে ২৯ হাজার কোটি টাকা, বিদেশ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন কারখানার যন্ত্রাংশ আমদানিতে ৯ হাজার কোটি টাকা এবং বিদ্যুৎ বিতরণে ১০ হাজার কোটি টাকা খরচ বাড়িয়ে দেখানো হয়েছে৷ এভাবে দুর্নীতির মধ্য দিয়ে আদানি গোষ্ঠী ৫০ হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে৷

২০১৭ সালের সেপ্টম্বরে বিশেষ তদন্তকারী দল (সিট) গঠনের দাবি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের খ্যাতনামা আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ ও অন্যান্যরা দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন৷ কিন্তু কোনও এক অজানা কারণে (!) চলতি বছরের ৯ মার্চ কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনস্থ রাজস্ব গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ আদালতকে জানায়, সিট দরকার নেই৷ কেন তদন্ত এড়ানোর চেষ্টা? বিদেশ থেকে ৭০ শতাংশ কয়লা আমদানি করে আদানির সংস্থা৷ সেই সংস্থা সিঙ্গাপুর আদালতে আবেদন করে, তদন্তের জন্য ভারত সরকার যে নথি চাইছে, তা যেন না দেওয়া হয়৷ কংগ্রেসের অভিযোগ, সিঙ্গাপুরের আইন দেখিয়ে সেই তথ্য দেওয়া হয়নি৷ এমনকী বিষয়টি নিয়ে ইডি–র তদন্ত ধামাচাপা দিয়েছে নরেন্দ্র মোদি সরকার৷ শুধু তাই নয়, আদানির বিরুদ্ধে ইডি–র যে সব অফিসার প্রাথমিক তদন্ত শুরু করেছিলেন, তাঁদের বিরুদ্ধে সিবিআইকে পর্যন্ত কাজে লাগানো হয়েছে বলে অভিযোগ৷ ফলে মোদি সরকার যে আদানির কেলেঙ্কারি ধামাচাপা দিতে তদন্ত চাইছে না, তা পরিষ্কার৷

এই কয়লা কেলেঙ্কারি শুরু কংগ্রেস শাসনে৷ ২০১২ সালে কংগ্রেস সরকারের বিরুদ্ধে কয়লা কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছিল, এতে রাজস্ব বাবদ সরকারের ক্ষতি হয়েছিল ১ লক্ষ ৮৬ হাজার কোটি টাকা৷ ক্যাগের রিপোর্ট ছিল, নানা বেসরকারি ও সরকারি দপ্তরকে ১৯৪টি কয়লা ব্লক বেচার ক্ষেত্রে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে৷ সেই সময় সিবিআই তদন্তের দাবি উঠেছিল৷ সিবিআই তদন্তে কংগ্রেস কয়লা কেলেঙ্কারিতে দোষী সাব্যস্ত হয়৷

কয়লা ব্লক দুর্নীতিতে অভিযুক্ত কংগ্রেস ২০১৩ সালে সিবিআই তদন্তের রিপোর্টকে পর্যন্ত পাল্টে দিয়েছিল৷ অন্যান্য নানা বহুজাতিক কোম্পানি ছাড়াও জিন্দাল, এসার গ্রুপ ও লক্ষ্মী মিত্তালদের কয়লা ব্লক বেচে দিয়েছিল কংগ্রেস৷ কয়লার সরাসরি ব্যবহার হয় যে শিল্পে (ক্যাপটিভ প্রয়োজনে), তা ছাড়াও বহু ব্লক কিনে তা থেকে কয়লা উত্তোলন করে বিপুল দামে খোলা বাজারে বিক্রি করে বিপুল লাভ করেছে তারা৷ আজ কংগ্রেস হইচই করলেও সে ইতিহাস দেশের মানুষ ভুলে যায়নি৷

আদানি প্রমুখ শিল্পপতিরা কয়লা উৎপাদনের পাশাপাশি বিদ্যুৎ ব্যবসাতেও বড় লগ্নি করেছে৷ তারা কয়লার উৎপাদন ব্যয় বহুগুণ বাড়িয়ে দেখায়, তার ভিত্তিতেই কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিদ্যুতের দাম ঠিক করে৷ ফলে বিদ্যুৎ মাশুলের বোঝা বেড়ে চলছে সাধারণ মানুষের উপর৷ আর শিল্পপতি গোষ্ঠীর লাভের বিপুল পরিমাণ টাকা চলে যাচ্ছে কর ফাঁকি দেওয়ার স্বর্গরাজ্য মরিশাসে৷ নানা ভুয়ো সংস্থার হাত ঘুরে সেই টাকা মরিশাসে গৌতম আদানির দাদা বিনোদ আদানির মালিকানাধীন একটি ট্রাস্টের সিন্দুকে জমা হয়েছে এমন অভিযোগ উঠছে৷ এই বিনোদ আদানির নাম বিদেশে গচ্ছিত কালো টাকা সংক্রান্ত পানামা নথিতেও ছিল৷ প্রধানমন্ত্রীর পদে বসে মোদিজি দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘তোপ’দেগে বলেছিলেন, ‘না খাউঙ্গা,  না খানে দুঙ্গা৷’ মানুষ দেখছে নরেন্দ্র মোদি তাঁর প্রিয় শিল্পপতিদের দুর্নীতির মাখন খেতেই সাহায্য করছেন৷

একে তো হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি, তার পরেও চলছে কর ফাঁকি৷ কংগ্রেসের ধারাবাহিকতায় বিজেপি একচেটিয়া পুঁজিপতিদের দেদার লুঠতরাজের সুযোগ করে দিচ্ছে, তাদের হাজার হাজার কোটি টাকার অনাদায়ী ঋণ মকুব করে দিচ্ছে৷ এভাবেই ললিত মোদি থেকে শুরু করে বিজয় মাল্য, নীরব মোদি, মেহুল চোকসি, আম্বানি, আদানিরা বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে সম্পদের পাহাড় বাড়িয়ে চলেছে৷ বিশ্বের সম্পদশালীদের তালিকার শীর্ষে উঠছেন আম্বানি–আদানিরা৷ আর আর্শীবাদধন্য হচ্ছে তাদের মদতদাতা বিজেপি–কংগ্রেস৷ অন্যদিকে বিপুল ক্ষতি হচ্ছে দেশের সাধারণ মানুষের৷ তাদের বাড়তি মাশুল গুনতে হচ্ছে৷ এমনিতেই বিপুল মূল্যবৃদ্ধি, বেকারিতে মানুষ জেরবার, তার উপর বাড়তি বিদ্যুৎ মাশুল তাদের জীবনের সংকটকে আরও জোরালো করে তুলছে৷ ক্রয়ক্ষমতা কমছে দিনের পর দিন৷ স্বভাবতই বাজার সংকটে জর্জরিত পুঁজিপতিরা দেশের নানা প্রাকৃতিক সম্পদ জল–জমি–খনি সমস্ত কিছুতে অবাধ লুঠপাঠ চালিয়ে মুনাফার ধারা অব্যাহত রাখার মরিয়া চেষ্টা করে যাচ্ছে৷ আর তাদের রাজনৈতিক ম্যানেজার বিজেপি ‘দোস্ত’ শিল্পপতিদের মুনাফার পথকে নিষ্কণ্টক করছে৷

(৭১ বর্ষ ৭ সংখ্যা ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮)