Breaking News
Home / খবর / এতদূর থেকে এসেছি কি বিশ্রাম নিতে

এতদূর থেকে এসেছি কি বিশ্রাম নিতে

মহান নভেম্বর সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের শতবর্ষ উদযাপনের সমাপ্তিতে ১৭ নভেম্বর রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়ে প্রবল প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যেও লক্ষাধিক মানুষের সমাবেশের ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে রইল কলকাতা৷

বাইরের রাজ্যগুলি থেকে আসা হাজার হাজার অংশগ্রহণকারীর মধ্যে বেশিরভাগই সমাবেশ শেষে ফিরে যান৷ আবার ১৮ নভেম্বর সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে অনুষ্ঠিত ভারত ও বাংলাদেশের সম্মিলিত সাংস্কৃতিক কর্মসূচিতে যোগ দেওয়ার জন্য বেশ কয়েক হাজার মানুষ থেকে যান৷ ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু করে ১৭ নভেম্বর দুপুর পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে আগত অংশগ্রহণকারীদের থাকার জন্য কলকাতার বিভিন্ন ধর্মশালা ভাড়া নিয়ে ক্যাম্প করা হয়৷ জাত–পাত–ধর্ম–বর্ণ-ভাষা-প্রদেশ প্রভৃতি সমস্ত কিছুর ঊর্ধ্বে উঠে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ মিলিত হয়েছিলেন এই ক্যাম্পগুলিতে৷

১৭ নভেম্বরের সমাবেশকে সামনে রেখে দলের কর্মীরা বিভিন্ন সময়ে অসংখ্যবার রাস্তায় দাঁড়িয়েছেন৷ প্রচারকার্যের পাশাপাশি সংগৃহীত হয়েছে অর্থও৷ অসংখ্য মানুষ অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছেন৷ অনেকে একাধিকবারও দিয়েছেন৷ সংগৃহীত এই অর্থেই ক্যাম্পগুলিতে থাকা–খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল৷ ফলে খাবার ছিল অত্যন্ত সাধারণ মানের৷ সকল অংশগ্রহণকারীই এই খাবার অত্যন্ত আনন্দ ও তৃপ্তির সাথে গ্রহণ করেছেন৷

৩–৪ দিন ট্রেনে ভ্রমণ করে গভীর রাত্রে বা ভোরে ক্যাম্পে পৌঁছানো মানুষগুলির শারীরিক অবস্থা সহজেই অনুমেয়৷ সকল তন্ত্রী যখন চাইছে বেশ কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিতে তখন ক্লান্তি সরিয়ে রেখে সকলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজেদের তৈরি করছিলেন সমাবেশে যোগ দিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড প্রভাস ঘোষের বক্তব্য শোনার জন্য৷ দেহে মনে নিজেদের তৈরি করে নিচ্ছিলেন সম্মিলিত ভাবে নিজেদের ভাষায় গান গেয়ে, মত বিনিময় করে৷ কোনও ক্লান্তি, অসুস্থতা কারও প্রাণোচ্ছলতাকে স্তিমিত করতে পারেনি৷

হরিয়ানা রাজ্য থেকে এসেছিলেন একজন বৃদ্ধ কৃষক৷ তিনি বেশ অসুস্থই ছিলেন, বাইরে তখন অঝোরে বৃষ্টি পড়ছে৷ ওই রাজ্যের নেতা তাঁকে বিশ্রাম নেওয়ার কথা বললেন৷ কৃষক কর্মীটি বললেন, এত দূর থেকে এসেছি কি বিশ্রাম নিতে? এখন আমি সমাবেশেই যাব৷

বিনানি ধর্মশালায় ছিলেন কয়েকজন  নিরাপত্তারক্ষী ও কেয়ারটেকার৷ একজন বললেন, আমি এখানে ৫৬ বছর রয়েছি৷ এখানে সিপিএম, তৃণমূল, বিজেপি সহ বিভিন্ন দলের কর্মীরা নানা সময়ে থাকেন৷ ওঁদের মধ্যে আমরা দেখেছি চূড়ান্ত উচ্ছৃঙখলতা৷ ওঁরা থাকলে ধর্মশালার বিভিন্ন জিনিস ভাঙচুর করেন৷ চলে গালিগালাজ৷ আমরা তটস্থ হয়ে থাকি৷ আর আপনাদের দেখলাম সম্পূর্ণ বিপরীত৷ এত মানুষ এখানে এসেছেন৷ সকলেই অত্যন্ত ক্লান্ত, বিধ্বস্ত৷ অত্যন্ত সাধারণ খাবার এঁরা খাচ্ছেন, কষ্ট করে থাকছেন, কিন্তু কোথাও কোনও হট্টগোল নেই, সকলেই শান্ত৷ কারও মধ্যে কোনও রাগ নেই, নেই বিরক্তি৷ এত মানুষের থাকা–খাওয়ার ব্যবস্থা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য ক্যাম্পের স্বেচ্ছাসেবকদের ধন্যবাদ জানালেন তাঁরা৷