Breaking News
Home / খবর / ঋণ নয়, চাই সরকারি খরচে শিক্ষা দাবি এআইডিএসও-র

ঋণ নয়, চাই সরকারি খরচে শিক্ষা দাবি এআইডিএসও-র

সম্প্রতি রাজ্য সরকার দশম শ্রেণি থেকে উচ্চশিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর পর্যন্ত চালু করেছে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড। এই কার্ডের ভিত্তিতে ছাত্রছাত্রীরা ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত শিক্ষাঋণ নিতে পারবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, এই প্রকল্প ছাত্রছাত্রীদের স্বপ্নপূরণ করবে এবং তাদের পড়াশুনা করার জন্যে অসুবিধায় পড়তে হবে না। এ প্রসঙ্গে এআইডিএসও-র রাজ্য সম্পাদক কমরেড মণিশঙ্কর পট্টনায়ক বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর এই কথা থেকেই পরিষ্কার, এ রাজ্যের ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষার স্বপ্ন অর্থনৈতিক সঙ্কটের কারণে পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে না, যার মূল কারণ অত্যধিক ফি। স্কুল স্তর থেকে উচ্চশিক্ষার বিভিন্ন স্তরে অত্যধিক হারে ফি-বৃদ্ধি এবং অন্যান্য বিপুল খরচ ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা জীবনের ইতি টেনে দিচ্ছে। অভিভাবকরা চরম অর্থনৈতিক সংকটে। অসংখ্য ছাত্রছাত্রীকে জমি-বাড়ি, সহায় সম্বলটুকু বন্ধক রেখে পড়াশোনা করতে হচ্ছে। সরকার শিক্ষাক্ষেত্রে বহু চমকদার প্রকল্প ঘোষণা করলেও শিক্ষার মূল পরিকাঠামোগত উন্নয়নে অর্থবরাদ্দ বৃদ্ধি করে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত সমস্ত ছাত্রের বিনা বেতনে পড়ার ব্যবস্থা করার দিকে এগোচ্ছে না।
সরকার একদিকে শিক্ষার ব্যয় ক্রমাগত বাড়াচ্ছে, অন্যদিকে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড চালু করে ছাত্রসমাজের ত্রাতা সাজতে চাইছে। বাস্তবে এই ঋণ প্রকল্প একদল কর্মসংস্থানহীন এবং ক্রমবর্ধমান সুদের ভারে জর্জরিত ঋণগ্রস্ত অসহায় নাগরিক সৃষ্টি করবে। সরকার বলেছে, এই ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ঋণ নিয়ে পড়াশোনা করার পর চাকরি পেয়ে পনেরো বছরের মধ্যে নির্দিষ্ট পরিমাণ সুদ সহ তা শোধ করা যাবে। কিন্তু চাকরি না পেলে? ঋণগ্রহীতাদের জন্য শিক্ষান্তে উপযুক্ত কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে কি সরকার ? দেশে বেকারত্বের হার বিগত ৪৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এই অবস্থায় এই প্রকল্পকে প্রতারণা ছাড়া কি বলা যায়!
পাশাপাশি এই স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা নিয়ে একদল ছাত্র উচ্চশিক্ষার সুযোগ নিতে এবং বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং লবির দ্বারস্থ হবে। স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে সরকারের পরোক্ষ সহযোগিতায় ফুলে ফেঁপে উঠবে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং লবিগুলি। সরকারি এই প্রকল্প শিক্ষা ব্যবসায় এবং কর্পোরেটদের স্বার্থে চলা বর্তমান ক্রেডিট-নির্ভর অর্থনীতিতে সাময়িক একটা তেজি ভাব আনবে। কিন্তু সাধারণ মানুষের শিক্ষার অধিকারকে আরও সংকটের দিকে ঠেলে দেবে। সরকার কৌশলে শিক্ষার অর্থনৈতিক দায়িত্ব সম্পূর্ণ অস্বীকার করে সমস্ত ব্যয়ভার ছাত্রছাত্রীদের উপর চাপিয়ে দিচ্ছে এবং এই ব্যয়ভার বহন করার জন্য শিক্ষাঋণের ব্যবস্থা সহজ করে দিচ্ছে। এর ফলে শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যাপক ফি বৃদ্ধি ঘটবে এবং সমস্ত ধরনের স্টাইপেন্ড ও স্কলারশিপ বন্ধ করে ঋণনির্ভর শিক্ষা প্রবর্তন অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা ছাত্রছাত্রীদের জন্য চরম সর্বনাশ ডেকে আনবে।
এআইডিএসও-র দাবি, স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড প্রকল্পের পরিবর্তে সরকার শিক্ষা ব্যবস্থায় সর্বক্ষেত্রে ফি-র বোঝা লাঘব করুক। শিক্ষা হোক অবৈতনিক।

গণদাবী ৭৩ বর্ষ ৩৮ সংখ্যা